মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায় কেন


মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারণঃ আপনি যদি একজন মোবাইল ব্যাবহারকারী হয়ে থাকেন এবং আপনার মোবাইলের ব্যাটারি আয়ু নিয়ে চিন্তিত হন, তাহলে আপনি সঠিক জায়গাতেই এসেছেন। আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের জানাব যে কেন মোবাইলের চার্জ  দ্রুত শেষ হয়ে যায় এবং এর থেকে বাচার উপায় কি। 

বর্তমান সময়ে মোবাইল ফোন আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী। এবং এটা প্রয়োজনীয় যে আমরা যেখানেই যায় না কেন আমাদের মোবাইল ফোন আমাদের সাথেই থাকুক। কেননা মোবাইল ফোন আমাদের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যমে। এছাড়াও আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা অবসর সময়টা মোবাইল ব্যাবহারের মাধ্যমেই কাটাতে বেশি পছন্দ করি। 

দিন যত যাচ্ছে মোবাইলে ফোনর যন্ত্রাংশ তুলনামূলক ততই ছোট এবং শক্তি সাশ্রয়ী হয়ে উঠছে। এবং সেই সাথে মোবাইলের ব্যাটারির ধারণক্ষমতাও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে এখনো অনেক মোবাইল ফোন ব্যাবহারকারী আছেন যারা তাদের মোবাইলের ব্যাটারির স্থায়িত্ব নিয়ে অভিযোগ করেন। 

আর আমার ব্যাক্তিগত মত অনুযায়ী এটা করাটাই স্বাভাবিক। কেননা বর্তমান ব্যাস্ত সময়ে কোন ব্যাক্তিই দিনের মধ্যভাগে এসে তার মোবাইল ফোন চার্জ করা পছন্দ করবেন না। তবে এই সমস্যাটি একটি ভালো ধারণক্ষমতার ব্যাটারি যুক্ত মোবাইলে সাধারণত দেখা যায় না। 

তবে, এমন অনেকগুলো কারণ আছে যেগুলোর ফলে আপনর মোবাইলে যতই শক্তিশালী ব্যাটারি থাকুক না কেন আপনার মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যাবে। আর তাই আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হওয়ার কারন এবং তা প্রতিকারের উপায় নিয়ে আলোচনা করব। 

মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যায় কেন? 

বিভিন্ন কারণে মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যেতে পারে। নির্দিষ্ট করে বলা যাবে না যে ঠিক এই কারণেই আপনার মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হচ্ছে। তাই আমি মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হবার সম্ভাব্য কারণ সমূহ নিম্নে বর্ণনা করলাম। 

বিঃ দ্রঃ নিম্নে বর্ণিত কারণ সমূহ আপনার মোবাইলের হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়ারের উপর নির্ভর করে পরিবর্তন হতে পারে। 

মোবাইলের ব্রাইটনেস

বর্তমান সময়ের স্মার্টফোনগুলোর ব্যাটারি শেষ হবার পিছনে যে জিনিসটা সব থেকে বেশি ভূমিকা রাখে তা হল মোবাইলের ডিসপ্লে। দিন দিন মোবাইলের ডিসপ্লেগুলি বড় এবং উজ্জ্বল হচ্ছে সেই সাথে আরও বেশি পরিমাণে শক্তি ব্যাবহার করছে যা মোবাইলের ব্যাটারির আয়ুকে স্বল্পস্থায়ী করছে। 

প্রয়জনের থেকে অতিরিক পরিমাণে মোবাইলের ডিসপ্লেতে ব্রাইটনেস দিয়ে রাখলে অল্প সময়ের মধ্যেই আপনার মোবাইলের ব্যাটারি শেষ হয়ে যাবে। এছাড়াও মোবাইলের স্ক্রিন কতক্ষণ আলোকিত থাকে তার উপরেও ব্যাটারি এর আয়ু অনেকটাই নির্ভর করে। 

দুর্বল নেটওয়ার্ক 

আপনারা অনেকেই হয়ত ভাবছেন যে নেটওয়ার্কের সাথে আবার মোবাইলের ব্যাটারির কি সম্পর্ক আছে। হাঁ ভাই নেটওয়ার্কের সাথেও মোবাইলের ব্যাটারির জীবনকালের সম্পর্ক রয়েছে। দুর্বল নেটওয়ার্কে আপনার মোবাইল সার্বক্ষণিক চেষ্টা করে, যে কিভাবে সে একটি স্থিতিশীল সংযোগ তৈরি করবে। 

কিন্তু যেহেতু আপনার এলাকায় নেটওয়ার্ক দুর্বল তাই আপনার মোবাইল কখনই একটি স্থিতিশীল সংযোগ তৈরি করতে পারে না এবং এই চেষ্টা অব্যাহত রাখে। ফলস্বরূপ আপনার মোবাইলের ব্যাটারি খুব তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যায়।

অতিরিক্ত অ্যাপ ব্যাবহার 

প্রয়োজনের অতিরিক্ত কোন কিছুই ব্যাবহার করা উচিত নয়, ঠিক তেমনি মাত্রাতিরিক্ত অ্যাপের ব্যাবহারও আমাদের মোবাইল এবং মোবাইলের ব্যাটারির উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। অতিরিক্ত অ্যাপ ব্যাবহার করলে মোবাইলের প্রসেসর কে বেশি কাজ সম্পন্ন করতে হয় ফলে অতিরিক্ত পরিমাণে ব্যাটারি ফুরিয়ে যায়। 

এছাড়াও অনেক অ্যাপ আছে যেগুলো প্রাথকমিকভাবে ব্যাবহার না করলেও ব্যাকগ্রাউন্ডে আপনার অজান্তেই অনেক কাজ সম্পাদন করে যা মোবাইলের অন্যান্য উপকরণের সাথে সাথে ব্যাটারির শক্তিও ব্যাবহার করে। 

মোবাইলের তাপমাত্রা 

ফোনর ব্যাটারির জীবনকালের সাথে তাপমাত্রার একটা নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। এছাড়াও একটি ব্যাটারির কতটুকু তাপমাত্রায় ভালো পারফরম্যান্স করতে পারে সেটা তার গায়ে লেখা থাকে।

ব্যাবহার করার সময় আপনার মোবাইল যদি অতিরিক্ত পরিমাণে গরম হয়ে যায় তাহলে আপনার মোবাইলের চার্জ খুবি তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে যাবে। আবার অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পরিবেশে মোবাইল ফোন ব্যাবহার করলেও ঠিক একই ব্যাপার লক্ষ করবেন। 

অত্যাধিক ক্যামেরা ব্যাবহার

ডিসপ্লের পর যে জিনিসটা মোবাইলের চার্জ ফুরিয়ে যাবার জন্যে দায়ী তা হল ক্যামেরা। ক্যামেরায় ধারণকৃত দৃশ প্রসেসিং করতে মোবাইলে ফোনকে প্রচুর পরিমাণে শক্তি বায় করতে হয় যা মোবাইলের ব্যাটারি এর উপর চাপ সৃষ্টি করে। 

আপনি যদি অতিরিক্ত পরিমাণে ক্যামেরা ব্যাবহার করে থাকেন তাহলে আপনার মোবাইলের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যাবে। এছাড়াও প্রয়োজন ছাড়া ব্যাকগ্রউন্ডে ক্যামেরা অ্যাপ চালু রাখাও ব্যাটারি ফুরিয়ে যাবার অন্যতম কারণ। 

মেয়াদ উত্তীর্ণ সফটওয়্যার

দীর্ঘদিন ব্যাবহার এবং বিভিন্ন প্রকার পরিবর্তনের কারণে অনেকসময় মোবাইলের সফটওয়্যার ত্রুটিপূর্ণ হয়ে পরে। যা সঠিকভাবে ব্যাটারি ব্যাবস্থাপনা করতে পারে না যা মোবাইলের চার্জ দ্রুত শেষ হবার অন্যতম কারণ। 

ফোনর বয়স 

সময়ের সাথে সাথে সবকিছুরই খয় সাধিত হয়। ঠিক তেমনি মোবাইল ফোন যখন পুরনো হয়ে যায় তখন সেটা তার নতুন অবস্থার মত সেবা দিতে পারে না। বিশেষ করে মোবাইলের ব্যাটারিটি যদি পুরাতন হয়ে যায় তাহলে সেটার ধারণক্ষমতা হ্রাস পায়। 

মোবাইলের ব্যাটারি দীর্ঘ স্থায়ী করার উপায়। 

কয়েকটি সাধারণ পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমেই আমরা আমাদের মোবাইলের ব্যাটারি দীর্ঘ স্থায়ী করতে পারই। আর এই সাধারণ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে আমাদের তেমন কষ্ট করতে হবে না বা আমাদের অর্থও খরচ করতে হবে না। 

সঠিক চার্জার ব্যাবহার করা 

আমরা অনেকেই আছি যারা হাতের কাছে যে চার্জার পাই তা দিয়েই আমাদের মোবাইল চার্জ দিয়ে থাকি। কিন্তু আপন জানেন কি প্রতিটি মোবাইলের একটি নিদিষ্ট ওয়াটের চার্জার থাকে। আর শুধুমাত্র সেই নির্দিষ্ট ওয়াটের চার্জার দিয়ে চার্জ দিলেই কেবল সঠিকভাবে আমাদের মোবাইল চার্জ দেওয়া সম্ভব। 

আপনি যদি আপনার মোবাইলের ধারণ ক্ষমতার থেকে বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন একটি চার্জার ব্যাবহার করেন তাহলে আপনার মোবাইলের ব্যাটারি অচিরেই নষ্ট হয়ে যাবে। আবার কম ক্ষমতা সম্পন্ন চার্জার ব্যাবহার করলেও ঠিক এমনটাই হবে। তাই সব সময় আপনার ফোনর জন্যে নির্ধারিত চার্জারটাই ব্যাবহার করার চেষ্টা করবেন। 

সবসময় কেসিং ব্যাবহার না করা  

স্বাভাবিক ভাবেই আমরা যখন আমাদের মোবাইল ফোন ব্যবহার করি তখন সেটা গরম হয়। তবে সেটা ব্যাবহারের মাত্রার উপর নির্ভর করে। আমরা যারা গেমার আছি তারা যদি ফোনর কেসিং খুলে গেম খেলি তাহলে ফোন গরম হবার মাত্রাটা অনেকাংশেই কমাতে পরব। 

এছাড়াও আপনি যদি চার্জে দেওয়ার সময় ফোনর কেসিং খুলে রাখেন তাহলে চার্জ হবার পক্রিয়া অনেক দ্রুততার সাথে শেষ হবে। আর আমি আগেও বলেছি যে উচ্চ তাপমাত্র আমাদের ফোনর ব্যাটারির উপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে। তাই চেষ্টা করবেন মোবাইল গরম হয়ে গেলে কেসিং খুলে রাখার। 

পরিকল্পিতভাবে ব্রাইটনেস ব্যাবহার করা। 

আমি এমন অনেককেই দেখেছি যে তার মোবাইলর ডিসপ্লের ব্রাইটনেস ঘরে বাইরে একই রাখে। কিন্তু আমরা সকলেই জানি যে বাইরের তুলনায় ঘরের মধ্যে কম ব্রাইটনেস প্রয়োজন হয়। 

সুতরাং আমরা যদি প্রয়োজন অনুযায়ী পরিকল্পিতভাবে আমাদের মোবাইলের ব্রাইটনেস সেট করে রাখি তাহলে খুব সহজেই আমাদের মোবাইলের ব্যাটারির আয়ুকে দীর্ঘস্থায়ী করতে পারব। 

ব্যাকগ্রউন্ড কাজগুলো বন্ধ রাখা

এমন অনেক অ্যাপ আছে যেগুলো ব্যাকগ্রউন্ডে অনেক কাজ পরিচালিত করে থাকে। তবে বেশিরভাগই আপনার তেমন প্রয়োজন হয় না। সুতরাং অপ্রয়োজনীয় অ্যাপগুলি ডিলিট করার মাধ্যমে আপনি চাইলেই আপনার ব্যাটারি অপ্টিমাইজ করতে পারবেন। 

শেষ কথা 

সর্বোপরি, আমরা আমদের মোবাইলের ব্যাটারির পারফরমেন্সের উপর নজর রাখার মাধ্যমে খুব সহজেই বুঝতে পারব, যে কখন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করলে আমাদের মোবাইলের ব্যাটারির জন্যে তা ভাল হবে। 

আপনি খুব সহজে আপনার ফোনের সেটিংস অ্যাপ ব্যবহার করে মোবাইলের ব্যাটারির উপর নজর রাখতে পারবেন। মোবাইল ফোন এবং এর বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে আপনার কিছু জানার থাকলে কমেন্টে জানান। 

পোস্টটি পরার জন্যে ধন্যবাদ! 


Comments

Popular posts from this blog

shillong teer hit number whatsapp 2023

বাংলাদেশে মোবাইল ট্যাক্স কত ? বিদেশ থেকে মোবাইল আনার উপায়

florina gogoi biography age, fother, mother, bf, house, mobille number 2023